তাবারক হোসেন আজাদ, লক্ষ্মীপুর:

গত দু’দিনের বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার (২২ ও ২৩ অক্টোবর) টানা বর্ষণে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর পৌরসভাসহ ১০টি ইউনিয়নের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। পৌরসভা ও গ্রামের সড়কগুলো বন্যার পানিতে ডুবে যাওয়ায় ভারি যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। অপর দিকে, উপজেলা কমপ্লেক্স চত্তর ও আবাসিক ভবনের আশপাশ, শহড়ের মুড়িহাটা, মধ্যবাজার, প্রধান সড়ক, হাসপাতাল এলাকাপৌর ভুমি অফিস এলাকা বন্যার পানি ওঠায় ব্যাহত হচ্ছে কার্যক্রম। বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে হাসপাতালে ও বাসা বাড়ীতে শিশু ও বৃদ্ধরা চরম অসস্তিতে রয়েছেন।

জানা গেছে, গত দু’দিনের টানা বর্ষণের কারণে উপজেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত মেঘনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বন্যা দেখা দিয়েছে। উপজেলার পৌরসভা ও ১০টি ইউনিয়নের ২০টি গ্রাম বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এসব গ্রামের প্রায় ৫০ হাজার মানুষ এখনও পানিবন্দি অবস্থায় জীবনযাপন করছে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় ১৫ হাজার হেক্টর ফসলী জমি রয়েছে। গত দু’দিনের টানা বর্ষণে ২ হাজার ৭৮০ হেক্টর জমির ধান ও ২১০ হেক্টর জমির শীতকালীন শাকসবজিসহ প্রায় তিন হাজার হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়ে গেছে।

রায়পুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবরীন চৌধুরী জানান, প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষকে ত্রাণ সহায়তা দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এলাকাগুলোতে সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর রাখা হচ্ছে।। যে কোন ধরণের পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রশাসনের প্রস্তুতি রয়েছে বলেও তিনি জানান।

পানি উন্নয়ন বোর্ড রায়পুরের উপ-সহকারি প্রকৌশলী (এসও) আলমগীর হোসেন জানান, মেঘনা নদীর রায়পুরের চরবংশী হাজিমারা পয়েন্টে বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে বিপদ সীমার ১১১ সেন্টি মিটার ওপর দিয়ে বন্যার পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here